Main menu

বাংলাদেশি বাংলায় গান (১)

বাংলাদেশি বাংলা গানের লিস্ট বানাইতেছি। ব্যাপারটা কম্যুনাল না, ডেমোক্রেটিক। ব্যাপারটা ভোকাবুলারির না, এটিচ্যুডের। মিউজিক লইয়া কইতে পারি না বেশি, স্রেফ মালুম হয়, কোন একটা ভঙ্গি আছে, তফাতের বইলা বুঝতে পারি, মিউজিক কম বুঝি বইলা বুঝাইতে মুশকিল হয়।

তো, বাংলাদেশি বাংলা কেমন? অনেকগুলি দিক আছে, এইখানে একটার কথাই কইতেছি। বাংলাদেশের বাঙালিরা ক্লাস-রিলিজিয়ন-মিডিয়াম উতরাইয়া যেই বাংলাটা বোঝে, কয়–সেই বাংলাটা। সবাই বোঝে তেমন বাংলা না পাইতেই পারি, কোন জরিপও নাই আসলে, তবু অনুমান করি একটা বাংলা বেশির ভাগ বাঙালি বোঝে বাংলাদেশের, সেই বাংলায় ইন্টার-ক্লাস, ইন্টার-মিডিয়াম আলাপ করে, আড্ডা মারে, গালি দেয়, পিরিত করে, আদর করে, ভাবে। সেই বাংলাটা চিনতে আর চিনাইতে চাইতেছি এই গানগুলির ভিতর দিয়া।

[গানের ইনফরমেশনগুলি নানান সোর্স থিকা নেয়া হইছে, অথেনিটিসির ব্যাপারে কিছুটা ডাউটফুল।…  ]

……………………………………………………………….

কি যাদু করিলা পিরীতি শিখাইলা

সিনেমা – রঙিন প্রাণ সজনী। লিরিকস – মনিরুজ্জামান মনির। সুর – আলম খান। গাইছেন – সাবিনা ইয়াসমিন আর অ্যান্ড্রু কিশোর।

কি যাদু করিলা পিরীতি শিখাইলা
থাকিতে পারিনা ঘরেতে প্রাণ সজনী
থাকিতে পারিনা ঘরেতে

কি মন্ত্র পড়িলা ভাবেতে মজাইলা
থাকিতে পারিনা ঘরেতে প্রাণ সজনী
থাকিতে পারিনা ঘরেতে।।

নয়ন জুড়াইলা পরান কাড়িলা।
মরমে বাজাইলা মধুর বাঁশী

পড়ে গো ধলিয়া হাসিয়া হাসিয়া।
তোমারি মুখেতে পূর্ণ শশী

কি কথা কহিয়া পাগল বানাইলা
কিছুতে পারিনা সহিতে প্রাণ সজনী
কিছুতে পারিনা সহিতে

কি মন্ত্র পড়িলা ভাবেতে মজাইলা
থাকিতে পারিনা ঘরেতে প্রাণ সজনী
থাকিতে পারিনা ঘরেতে

আমার লাগিয়া নিরালে বসিয়া।
তোমারে যতনে গড়িল বিধি

মরিব মরণে তোমারি বিহনে।
তোমারে জীবনে না পাই যদি

কি মালা গাঁথিলা আমারে পরাইলা
কিছুতে পারিনা খুলিতে প্রাণ সজনী
কিছুতে পারিনা খুলিতে।।

 

কি দিয়া মন কাড়িলা
সিনেমা – অশান্তি। লিরিকস – মনিরুজ্জামান মনির। সুর – আলম খান। গাইছেন – সাবিনা ইয়াসমিন আর অ্যান্ড্রু কিশোর।

কি দিয়া মন কাড়িলা, ও বন্ধুরে
অন্তরে পিরীতের আগুন ধরাইলা
নজরে নজরে রাখিয়া আমারে
নয়নে বাণ মারিলা
অন্তরে পিরীতের আগুন ধরাইলা

জানে, জানে বিথীর পাতা, জানি তরুলতা
তোমার দুটি হাত ছুয়েঁ দিয়েছিলাম কথা
জানে জানে বনের পাখি, জানে গাঙের পানি
যতনে তে আছে বন্ধু তোমার কথাখানি

ইশারাতে ডাক দিয়া, হাতের কাছে আমায় নিয়া
হৃদয়ে বাণ মারিলা
ও বন্ধুরে অন্তরে পিরীতের আগুন ধরাইলা

দেখো, দেখো মনের চোখে, দেখো ভালো করে
আছি তোমার, রব তোমার সারাজীবন ধরে
রাখো, রাখো আপন করে রাখো বুকের মাঝে
তুমি ছাড়া কেউ যেন পায় না গো খুঁজে

যাদুমাখা রূপ নিয়া, পাগল করা হাসি দিয়া
ফাগুনের রঙ কাড়িলা
ও বন্ধুরে অন্তরে পিরীতের আগুন ধরাইলা


ওরে নীল দরিয়া

সিনেমা –  সারেং বউ। লিরিকস – মুকুল চৌধুরী। সুর – আলম খান। গাইছেন – আব্দুর জব্বার।

ওরে নীল দরিয়া
আমায় দে রে দে ছাড়িয়া
বন্দী হইয়া মনোয়া পাখি, হায়রে
কান্দে রইয়া রইয়া।

কাছের মানুষ দূরে থুইয়া,
মরি আমি ধড়-ফড়াইয়া রে
দারুণ জ্বালা দিবানিশি
অন্তরে অন্তরে
আমার এত সাধের মন বধূয়া
হায়রে কি জানি কি করে

ওরে সাম্পানের নাইয়া,
আমায় দে রে দে ভিড়াইয়া
বন্দী হইয়া মনোয়া পাখি, হায়রে
কান্দে রইয়া রইয়া
ওরে সাম্পানের নাইয়া

হইয়া আমি দেশান্তরী
দেশ-বিদেশে ভিড়াই তরী,রে
নোঙর ফেলি ঘাঁটে ঘাঁটে
বন্দরে বন্দরে
আমার মনের নোঙর পইড়া রইছে হায়রে
সারেঙ বাড়ির ঘরে

এই না পথ ধইরা
আমি কত যে গেছি চইলা
একলা ঘরে মন বধূয়া আমার
আমার রইছে পন্থ চাইয়া


মনটা যদি খোলা যেত

সিনেমা –  চন্দনদ্বীপের রাজকন্যা। লিরিকস – আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। সুর – আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। গাইছেন – সাবিনা ইয়াসমিন।

মনটা যদি খোলা যেত
সিন্ধুকেরই মত
দেখাইতে পারিতাম তোমায়
ভালোবাসি কত
পাগল করিলা বন্ধু
কি যাদু করিলা রে

ও প্রাণ বন্ধু রে
ও সোনা বন্ধু রে
ও বন্ধুরে…হো…
ভাসাইলা ভাসাইলা মোরে
উথাল প্রেমের জোয়ারে
ও প্রাণ বন্ধু রে……ও সোনা বন্ধু রে

নাকের যেমন নোলক আছে
কানের আছে দুল রে
ফুলের যেমন ভ্রমর আছে
নদীর আছে কুল রে ।।
তুমি আমার জীবন তরী
আশারই দরিয়া রে
ও প্রাণ বন্ধু রে……ও সোনা বন্ধু রে

মনটা যদি খোলা যেত
সিন্ধুকেরই মত
দেখাইতে পারিতাম তোমায়
ভালোবাসি কত

পাগল করিলা বন্ধু
কি যাদু করিলা রে
ও প্রাণ বন্ধু রে……ও সোনা বন্ধু রে…।।

ও বন্ধুরে…হো…
ভাসাইলা ভাসাইলা মোরে
উথাল প্রেমের জোয়ারে
ও প্রাণ বন্ধু রে……ও সোনা বন্ধু রে

 

আমার প্রেমের তরী বইয়া চলে
সিনেমা –  মহেলখালির বাঁকে। লিরিকস – মুকুল চৌধুরী। সুর – আলম খান। গাইছেন – সাবিনা ইয়াসমিন আর ফেরদৌস ওয়াহিদ।

আমার প্রেমের তরী বইয়া চলে
মনের মানুষ লইয়া,
যারে নাইয়া, যেদিক খুশি, পিরীতের পাল তুইলা
ও হো হো হো…।

আমার মন মানষী বইসা আছে প্রেমের বৈঠা ধইরা
যারে নাইয়া, যেদিক খুশি, পিরীতের পাল তুইলা
ও হো হো হো…।

বাঁশরীয়া ছাড়া বাঁশি সুর বাজে না
তুমি আমার মনের বাঁশি, আমি বাঁশরিয়া।
ও হো হো হো…।।

ঐ না আকাশ কোলে যেমন মেঘ উইড়া যায়
তেমনি তোমার মন পিঞ্জরায় দোলাইও আমায়
ও হো হো হো…।।

 

কত কানলাম কত গো সাধলাম আইলা না
সিনেমা –  ভাত দে। লিরিকস – আমজাদ হোসেন। সুর – আলাউদ্দিন আলী। গাইছেন – সৈয়দ আবদুল হাদী।

কত কানলাম কত সাধলাম আইলা না
(ও… ও… ও…)
পথের ধুলায় পইড়া রইলাম
একবার ফিরাও চাইলা না।

দিনে দিনে দিন যে গেল
মাসে মাসে বছর ফুরাইলো
এই কি গো তার মনে ছিল
ফাকি দিয়া কোথায় লুকাইলো
চোখের পানি চোক্ষে রইলো
পাষাণ আমার দেইখাও দেখলো না

কালো কোকিলা কি বিশ্বাসে
কাইন্দা মরে ফাল্গুন মাসে
মিথ্যা আশা ভালবাসা
এই না পিরীত সর্বনাশা গো
এতো কিছু জাইনা শুইনা
বান্ধব আমার খবর নিল না।।


আছেন আমার মোক্তার
সিনেমা –  গোলাপী এখন ট্রেনে। লিরিকস – গাজী মাজহারুল আনোয়ার। সুর – আলাউদ্দিন আলী। গাইছেন – সৈয়দ আবদুল হাদী।

আছেন আমার মোক্তার
আছেন আমার ব্যারিস্টার।।

শেষ বিচারের হাইকোর্টেতে
তিনিই আমায় করবেন পার
আমি পাপী তিনি জামিনদার।।

মনের ঘরে তালা দিয়া
চাবি লইয়া আছেন সাঁই
আমি অধম সাধ্য কি তার
হুকুম ছাড়া বাইরে যাই ।।
মনরে…ওহো মনরে…।।

দুই কান্দে দুই মুহূরি
লিখতে আছেন ডাইরি।।
দলিল দেইখা রায় দিবেন
টাকা পয়সার নাই কারবার
সময় থাকতে মনা হুশিয়ার
আমি পাপী তিনি জামিনদার

সেদিনের সেই ইস্টিশনে
থাকবে নানান প্যাসেন্জার
দ্রুতযানে পাড় হবে সে
টিকিট কাটা আছে যার।।
মনরে… ওহো মনরে…।।

পারাপারের থাকলে তাড়া
সঙ্গে নিও গাড়ি ভাড়া।।
জবাবদিহি করতে হবে
ধরলে টিকিট কালেক্টার
সময় থাকতে মনা হুশিয়ার
আমি পাপি তিনি জামিনদার।।

 

 

হায়রে মানুষ রঙ্গিন ফানুস

সিনেমা –  বড় ভালো লোক ছিলো।  লিরিকস – সৈয়দ শামসুল হক। সুর – আলম খান। গাইছেন – এন্ড্রু কিশোর।

হায়রে মানুষ, রঙ্গীন ফানুস
দম ফুরাইলেই ঠুস
তবুতো ভাই কারোরই নাই একটুখানি হুশ
হায়রে মানুষ, রঙ্গীন ফানুস
রঙ্গীন ফানুস, হায়রে মানুষ।।

পূর্ণিমাতে ভাইসা গেছে নীল দরিয়া
সোনার পিনিশ বানাইছিলা যতন করিয়া
চেলচেলাইয়া চলে পিনিশ, ডুইবা গেলেই ভুস।।

মাটির মানুষ থাকে সোনার মহল গড়িয়া
জ্বালাইয়াছে সোনার পিদিম তীর্থ হরিয়া
ঝলমলায়া জ্বলে পিদিম, নিইভ্যা গেলেই ফুস।।

হায়রে মানুষ, রঙ্গীন ফানুস
দম ফুরাইলেই ঠুস
তবুতো ভাই কারোরই নাই একটুখানি হুশ
হায়রে মানুষ, রঙ্গীন ফানুস
রঙ্গীন ফানুস, হায়রে মানুষ

চুল ধইরো না খোঁপা খুলে
সিনেমা –  নয়নমনি।  লিরিকস –  আব্দুল লতিফ, গাজী মাজহারুল আনোয়ার। সুর – সত্য সাহা। গাইছেন – সাবিনা ইয়াসমিন।

চুল ধইরো না
খোঁপা খুলে যাবে যে নাগর ।।
আওলা কেশে পাগল বেশে কেমনে যাবো ঘর ।।
চুল ধইরো না
খোঁপা খুলে যাবে যে নাগর।।

হাত ধইরো না
চুড়ি ভেংগে বিঁধলে আমার হাতে
বলবে লোকে কলংকের দাগ কে দিল এ রাতে ।।

দোহাই তোমার…
দোহাই তোমার হাত ছেড়ে দাও লাগে বড় ডর
সোনার অংগে দাগ পড়িলে কেমনে যাব ঘর
হাত ধইরো না চুড়ি ভেংগে যাবে যে নাগর

আঁচল ধরে টান দিও না
শাড়ী ছিড়ে গেলে
কেমন করে ঘোমটা দেবো তুমি কাছে এলে ।।

দোহাই তোমার…
দোহাই তোমার আঁচল ছাড়ো লাগে বড় ডর
এত রাতে নিলাজ্ব হলে কেমনে যাব ঘর
আচল ছাড়ো শাড়ী ছিড়ে যাবে যে নাগর

 

 

তেল গেলে ফুরাইয়া

সিনেমা –  ত্যাগ।  লিরিকস –  মিল্টন খন্দকার, মনিরুজ্জামান মনির। সুর – আলম খান। গাইছেন – সৈয়দ আবদুল হাদী।

তেল গেলে ফুরাইয়া
বাত্তি যায় নিভিয়া
কি হবে আর কান্দিয়া?

কেহ আগে কেহ পরে
যেতে যে হবে
জমিজমা বাড়ি গাড়ি
সাথে না যাবে
আমি অধম কি করিব
সময় হলে চলে যাবো
মাটির দেহ মাটির সাথে
যাবে মিশিয়া।।

রঙ্গ রসে থাকি মেতে
দুনিয়া মাঝে
বহুরূপী সাজি আমি
কত না সাজে
পরপারে কি বলিব
ভবের কামাই কি দেখঅবো
নকল হাটে আসল সোনা
গেলাম বেচিয়া।।

 

 

আগের/পরের পর্ব<< নাউ প্লেয়িং: প্রোটোজেও পোলা, ও পোলা রে–ও মাইয়া, ও মাইয়া রে >>
শেয়ার অন::Share on Facebook0Share on Google+0Share on LinkedIn0Pin on Pinterest0Tweet about this on Twitter0Email this to someone
রক মনু

রক মনু

কবি। লেখক। চিন্তক। সমালোচক। নিউ মিডিয়া এক্সপ্লোরার। নৃবিজ্ঞানী। ওয়েব ডেভলপার। ছেলে।
  1. ক্রিয়েটিভ আর্ট
  2. ক্রিটিকস
  3. তত্ত্ব ও দর্শন
  4. ইন্টারভিউ
  5. তর্ক
  6. অন্যান্য